(বঙ্গানুবাদ) Leela’s Friend Bengali Translation | R.K. Narayan | Class 11

Rasipuram Krishnaswami lyer Narayanswami (1906-2001) is one of the most widely read Indian writers in English. His famous works include Swami and Friends(1935), The English Teacher (1945), The Guide (1958). Apart from novels, Narayan displayed versatility as an author in his essays, short stories, memoirs and travel books.

রাসিপুরম কৃষ্ণস্বামী আইয়ার নারায়ণস্বামী (১৯০৬-২০০১) ইংরেজিতে সর্বাধিক পঠিত ভারতীয় লেখকদের একজন। তাঁর বিখ্যাত রচনাগুলির মধ্যে রয়েছে ‘স্বামী এন্ড ফ্রেন্ডস’  (১৯৩৫), ‘দ্য ইংলিশ টিচার’ (১৯৪৫), ‘দ্য গাইড ‘(১৯৫৮)। উপন্যাসগুলি ছাড়াও নারায়ণ তাঁর প্রবন্ধ, ছোট গল্প, স্মৃতিচারণ ও ভ্রমণ বইয়ে লেখক হিসাবে বৈচিত্র্য প্রদর্শন করেছিলেন।

Leela’s Friend is taken from R.K. Narayan’s popular short story collection The Malgudi Days. The story explores the issues of the interaction between different social classes, friendship and trust, prejudice and exploitation.

‘লিলাজ ফ্রেন্ড’ বা ‘লিলার বন্ধু’ আর. কে. নারায়ণের জনপ্রিয় ছোট গল্পের সংকলন ‘দ্য মালগুডি ডেজ’ থেকে নেওয়া হয়েছে। গল্পটি বিভিন্ন সামাজিক শ্রেণি, বন্ধুত্ব এবং বিশ্বাস, কুসংস্কার এবং শোষণের মধ্যে পারস্পরিক ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া -এর বিষয়গুলি অনুসন্ধান করে।


Leela’s Friend Bengali Meaning Page 1


 Sidda was hanging about the gate at a moment when Mr Sivasanker was standing in the front veranda of his house, brooding over the servant problem.

সিদ্দা যখন গেটের কাছে ঘোরাঘুরি করছিল, তখন শ্রী শিবশঙ্কর তাঁর বাড়ির সামনে বারান্দায় দাঁড়িয়ে গভীরভাবে চাকর সংক্রান্ত সমস্যার কথা চিন্তা করছিলেন।

“Sir, do you want a servant?” Sidda asked.

“স্যার, আপনার কি চাকর চাই,” সিদ্দা জিজ্ঞেস করল।

“Come in,” said Mr Sivasanker.As Sidda opened the gate and came in, Mr Sivasanker subjected him to a scrutiny and said to himself, “Doesn’t seem to be a bad sort …At any rate, the fellow looks tidy.”

“ভিতরে এসো,” বললেন শ্রী শিবশঙ্কর। যখন সিদ্দা গেট খুলে ভিতরে এল, শ্রী শিবশঙ্কর তাকে আপাদমস্তক নিরীক্ষণ করলেন এবং নিজের মনেই বললেন, “খুব খারাপ বলে তো মনে হছে না।…. আর যাই হোক না কেন, লোকটিকে দেখে পরিষ্কার পরিছন্ন মনে হছে।”

“Where were you before?” he asked.

“আগে কোথায় চিলি”? তিনি জানতে চাইলেন।

Sidda said, “In a bungalow there,” and indicated a vague somewhere, “in the doctor’s house.”

সিদ্দা বলল, “ওই পাশের একটি বাংলো বাড়িতে”। এবং কোথাও একটি অস্পষ্টতার ইঙ্গিত দিয়েছিল, “ডাক্তারের বাড়িতে।”

“What is his name?”

“তাঁর নাম কি?”

“I don’t know master,” Sidda said.”He lives near the market.”

“জানি না বাবু,” সিদ্দা বলল, “তিনি বাজারে কাছে থাকতেন।”

“Why did they send you away?”

“তোমাকে তারা ছাড়িয়ে দিলেন কেন?”

“They left the town, master,” Sidda said, giving the stock reply. Mr Sivasanker was unable to make up his mind. He called his wife. She looked at Sidda and said, “He doesn’t seem to me worse than the others we have had.”

“তাঁরা শহর ছেড়ে চলে গেলেন বাবু।” সিদ্দা মজুত জবাব দিয়ে বলল। শ্রী শিবশঙ্কর মনস্থির করতে পারছিলেন না। তিনি তাঁর স্ত্রীকে দেকে পাঠালেন। তিনি সিদ্দাকে দেখে বললেন,”মনে তো হয় না আগের চাকরদের থেকে খারাপ।”


Leela’s Friend Bengali Meaning Page 2


Leela, their five-year-old daughter, came out, looked at Sidda and gave a cry of joy. “Oh Father!” she said, “I like him. Don’t send him away. Let us keep him in our house.” And that decided it.

তাঁদের পাঁচ বছরের মেয়ে লীলা বেরিয়ে এল, সিদ্দাকে দেখল এবং আনন্দে চিত্কার করে উঠল। “ওহ বাবা,” সে বলল, “আমার একে পছন্দ হয়েছে। একে তাড়িয়ে দিও না। একে আমরা আমাদের বাড়িতে রাখি”। এবং লীলার এই কথাতেই সিদ্ধান্ত পাকা হয়ে গেল।

Sidda was given two meals a day and four rupees a month, in return for which he washed clothes, tended the garden, ran errands, chopped wood and looked after Leela.

কাপড় কাচা, বাগান পরিচর্যা, ছোটখাটো ফাইফরমাশ খাটা, কাঠ কাটা আর লীলাকে দেখভাল করার বিনিময়ে সিদ্দাকে দুবেলা খাওয়া আর মাসে চার টাকা মাইনে দেওয়া হত।

“Sidda, come and play!” Leela would cry, and Sidda had to drop any work he might be doing and run to her, as she stood in the front garden with a red ball in her hand. His company made her supremely happy. She flung the ball at him and he flung it back. And then she said, “Now throw the ball into the sky.” Sidda clutched the ball, closed his eyes for a second and threw the ball up. When the ball came down again, he said, “Now this has touched the moon and come. You see here a little bit of the moon sticking.” Leela keenly examined the ball for traces of the moon and said, “I don’t see it.” “You must be very quick about it,” said Sidda, “because it will all evaporate and go back to the moon. Now hurry up…. ” He covered the ball tightly with his fingers and allowed her to peep through a little gap.

বাগানের সামনে লাল বল হাতে দাঁড়িয়ে লীলা যখনই ডাক দিত, “সিদ্দা, এস খেলি!” তাকে সব কাজ ফেলে লীলার কাছে ছুটে আসতে হত। সিদ্দার সঙ্গ তাকে দারুন খুশি করত। লীলা সিদ্দার দিকে বল ছুড়ে দিত আর সিদ্দা সেটাকে ছুড়ে ফেরত পাঠাত। তারপর সে বলত, “এবার বলটাকে আকাশের দিকে ছুড়ে দাও। ” সিদ্দা বলটা শক্ত করে ধরে, একমুহুর্তের জন্য চোখ বন্ধ করে বলটাকে উচুঁতে ছুড়ে দিত। যখন বলটা নিচে নেমে অস্ত তখন সে বলত, “এবার,এটা (বলটা) চাঁদকে ছুয়ে এসেছে। তুমি দেখতেই পাচ্ছ এর গায়ে এক টুকরো চাঁদ লেগে রয়েছে।” লীলা চাঁদের টুকরো খুঁজে উৎসাহের সঙ্গে বলটিকে পরীক্ষা করে বলত, “কই আমি তো দেখতে পাচ্ছি না।” সিদ্দা বলল, “খুব তাড়াতাড়ি করতে হবে নইলে সব উবে গিয়ে চাঁদে পৌছে যাবে। এখন তাড়াতাড়ি করো। …. বলটিকে আঙ্গুল দিয়ে চেপে ধরে ছোট্ট ফাঁক দিয়ে সে লীলাকে এক ঝলক দেখার সুযোগ করে দিল।

“Ah yes,” said Leela. “I see the moon, but is the moon very wet?”

“হ্যা তাই তো, “লীলা বলল “আমি চাঁদ দেখতে পাচ্ছি, কিন্তু চাঁদটা কি খুব ভিজে?”

“Certainly it is,” Sidda said.

“নিশ্চই তাই,” সিদ্দা বলল।

“What is in the sky, Sidda?”

“আকাশে কি আছে, সিদ্দা?”

“God,” he said.

“ঈশ্বর,” সে বলল।

“If we stand on the roof and stretch our arms, can we touch the sky?”

“আমরা যদি ছাদে দাঁড়িয়ে হাত বাড়াই তাহলে কি আমরা আকাশ ছুতে পারব?”

“Not if we stand on the roof here,” he said. “But if you stand on a coconut tree you can touch the sky.”

“এখানে ছাদে দাঁড়িয়ে আমরা পারব না,” সে বলল, “কিন্তু তুমি যদি নারকেল গাছের মাথায় চড়, তুমি আকাশকে ছুঁতে পারবে।”

“Have you done it?” asked Leela.

“তুমি কি কোনদিন তা করেছ? লীলা জিজ্ঞাস করল।

“Yes, many times,” said Sidda. “Whenever there is a big moon, I climb a coconut tree and touch it.”

“হ্যা, অনেকবার,” সিদ্দা বলল। ” যখনই মস্ত একটা চাঁদ ওঠে আমি একটা নারকেল গাছে উঠি এবং চাঁদকে ছুঁই।”

“Does the moon know you?”

“আচ্ছা, চাঁদ কি তোমাকে চেনে?”

“Yes, very well. Now come with me. I will show you something nice.”

“হ্যা, খুব ভালো করে। এখন চলো আমার সাথে। আমি তোমাকে একটা দারুন জিনিস দেখাবো।”

They were standing near the rose plant. He said, pointing, “You see the moon there, don’t you?”

তারা গোলাপ গাছের কাছে দাড়িয়ে ছিল । চাঁদের দিকে নির্দেশ করে সিদ্দা বলল, “তুমি চাঁদকে ওখানে দেখছ তাই না?”


Leela’s Friend Bengali Meaning Page 3


“Yes.”

“হ্যা।”

“Now come with me,” he said and took her to the backyard. He stopped near the well and pointed up. The moon was there, too. Leela clapped her hands and screamed in wonder, “The moon here! It was there! How is it?”

“এবার আমার সঙ্গে এসো,” এই বলে সে লীলাকে বাড়ির পিছনদিকে নিয়ে গেল। এবার পাতকুয়ার কাছে থেমে সিদ্দা আকাশের দিকে আঙ্গুল তুলল। চাঁদ এখানেও এসে হাজির। লীলা হাততালি দিয়ে বিস্ময়ে চিত্কার করে উঠল, “চাঁদ এখানে আগে ওখানে ছিল! কি করে হল?”

“I have asked it to follow us about.”

“আমি চাঁদকে বলেছি আমাদের পিছন পিছন আসতে।”

Leela ran in and told her mother, “Sidda knows the moon.”

লীলা এক ছুটে ভেতরে গেল আর তার মাকে বলল,”জানো মা, সিদ্দা চাঁদকে চেনে।”

At dusk he carried her in and she held a class for him. She had a box filled with catalogues, illustrated books and stumps of pencils. It gave her great joy to play the teacher to Sidda. She made him squat on the floor with a pencil between his fingers and a catalogue in front of him. She had another pencil and a catalogue and commanded, “Now write.”  And he had to try and copy whatever she wrote in the pages of her catalogue. She knew two or three letters of the alphabet and could draw a kind of cat and crow. But none of these could Sidda even remotely copy. She said, examining his effort “Is this how I have drawn the crow? Is this how I have drawn the B?” She pitied him, and redoubled her efforts to teach him. But that good fellow, though an adept at controlling the moon, was utterly incapable of plying the pencil. Consequently, it looked as though Leela would keep him there, pinned to his seat till his stiff, inflexible wrist cracked. He sought relief by saying, “I think your mother is calling you in to dinner.” Leela would drop the pencil and run out of the room, and the school hour would end.

সন্ধ্যাবেলায় সিদ্দা লীলাকে বাড়ির ভেতরে নিয়ে আসত এবং লীলা সিদ্দাকে পড়াত। লীলার একটা বাক্স ছিল যা ক্যাটালগ, ছবির বই আর পেন্সিলের ছোট টুকরো দিয়ে ভর্তি থাকত। সিদ্দার দিদিমনি হয়ে, সিদ্দাকে পড়ানোর খেলা, লীলাকে ভীষণ আনন্দ দিত। সে সিদ্দাকে মেঝের ওপর উবু হয়ে বসতে বাধ্য করত। তার হাতের আঙ্গুলের ফাঁকে পেনসিল গুঁজে দিয়ে তার সামনে একটা ক্যাটালগ রাখত। লীলার হাতে থাকত আর-একটা পেন্সিল এবং ক্যাটালগ এবং সে আদেশ দিত, “এবার লেখ।” আর সিদ্দাকে চেষ্টা করতে হত লীলা তার ক্যাটালগ যা লিখছে তা নকল করার। লীলা বর্ণমালার দু-তিনটে অক্ষরই জানত আর বিড়াল এবং কাক জাতীয় কিছু একটা আঁকতে পারত। কিন্তু এদের কোনটাই সিদ্দার পক্ষে নকল করা ছিল অসম্ভব। সিদ্দার প্রচেষ্টা পরখ করার পর লীলা বলত “এইভাবেই কি আমি কাকটাকে এঁকেছি? এইভাবে কি আমি ‘বি’ লিখেছি? সিদ্দার ওপর লীলার মায়া হত এবং সিদ্দাকে শেখানোর জন্য তার নিজের প্রচেষ্টাকে সে দ্বিগুন করত। কিন্তু সে বেচারী চাঁদকে নিয়ন্ত্রণ করার ব্যাপারে পারদর্শী হলেও, পেন্সিল চালনার কাজে একেবারেই অক্ষম। ফলে ব্যাপারটা এমন দাঁড়াত যে মনে হত লীলা বুঝি তাকে তার বসার জায়গায় পিন দিয়ে গেঁথে রেখেছে যতক্ষণ না তার কাঠ হয়ে ওঠা কব্জি ভেঙ্গে পড়ার দাখিল হত। তখন “আমার মনে হয় তোমার মা তোমাকে ডিনার খেতে ভিতরে ডাকছেন” — এই বলে সে অব্যাহতি চাইত। লীলা তখন পেন্সিল ফেলে ঘর ছেড়ে চলে যে আর পঠনপাঠন পর্বও শেষ হত।

After dinner Leela ran to her bed.Sidda had to be ready with a story. He sat down on the floor near the bed and told incomparable stories of animals in the jungle, of gods in heaven, of magicians who could conjure up golden castles and fill them with little princesses and their pets ….

রাতের খাওয়া শেষে লীলা দৌড়ে বিছানায় যেত। সিদ্দাকে সেখানে তার গল্প নিয়ে তৈরী থাকতে হত। সে বিছানার কাছে মেঝের ওপর বসে তার অতুলনীয় গল্পগুলো বলত — জঙ্গলের জন্তুজানয়ারদের গল্প, স্বর্গের দেবতাদের কাহিনী কিংবা সেইসব জাদুকরদের কাহিনী যারা জাদুবলে সোনার দুর্গ তৈরী করে সেখানে ছোট্ট রাজকুমারীদের আর তাদের পোষ্যদের ভরে রাখতে সক্ষম…

Day by day she clung closer to him. She insisted upon having his company all her waking hours. She was at his side when he was working in the garden or chopping wood, and accompanied him when he was sent on errands.

দিনে দিনে লীলা সিদ্দাকে আরো বেশি করে আঁকড়ে ধরতে লাগল। যখন সিদ্দা বাগানে কাজ করে বা কাঠ কাটে লীলা তার পাশে পাশে থাকে আর সিদ্দা যখন কোনো কাজে বাইরে যায় তখন লীলা তার সঙ্গী হয়।

One evening he went out to buy sugar and Leela went with him. When they came home, Leela’s mother noticed that a gold chain Leela had been wearing was missing. “Where is your chain?” Leela looked into her shirt, searched and said, “I don’t know.” Her mother gave her a slap and said, “How many times have I told you to take it off and put it in the box?”

একদিন সন্ধ্যাবেলা সিদ্দা বাইরে বেরিয়েছিল চিনি কিনতে আর লিলাও গেল তার সঙ্গে। যখন তারা বাড়ি ফিরল লীলার মা লক্ষ করলেন যে সোনার হারটি লীলা পরে ছিল সেটি নেই। “তোমার চেনটা কোথায়?” লীলা তার জামার ভিতরে দেখল, খুজল আর তারপর বলল “আমি তো জানি না।” লীলার মা তাকে এক চড় কষিয়ে বললেন, “কতবার তোমাকে বলেছি ওটা খুলে বাক্সের মধ্যে রাখতে?”


Leela’s Friend Bengali Meaning Page 4


“Sidda! Sidda!” she shouted a moment later. As Sidda came in, Leela’s mother threw a glance at him and thought the fellow already looked queer. She asked him about the chain. His throat went dry. He blinked and answered that he did not know. She mentioned the police and shouted at him. She had to go back into the kitchen for a moment because she had left something in the oven. Leela followed her, whining “Give me some sugar, Mother, I am hungry.” When they came out again and called, “Sidda, Sidda!” there was no answer. Sidda had vanished into the night.

“সিদ্দা সিদ্দা,” লীলার মা কিছুক্ষণ বাদে চিত্কার করলেন। সিদ্দা আসামাত্র লীলার মা সিদ্দাকে একঝলক দেখে নিলেন এবং ভাবলেন যে লোকটিকে দেখতে কেমন যেন অদ্ভূত লাগছে। তিনি তাকে হারের কথা জিজ্ঞাসা করলেন। সিদ্দার গলা শুকিয়ে গেল। সে চোখ পিট পিট করে উত্তর দিল সে কিছু জানে না। লীলার মা পুলিসের কথা উল্লেখ করে চিত্কার জুড়লেন। তাঁকে একবার রান্না ঘরে যেতে হল কারণ উনুনে কিছু একটা চাপানো ছিল। লীলা তাঁর পিছনে ঘ্যান ঘ্যান করছিল, “আমাকে একটু চিনি দাও না মা, আমার খিদে পেয়েছে।” যখন তাঁরা আবার বেরিয়ে এলেন এবং “সিদ্দা, সিদ্দা” বলে ডাক দিলেন, তখন কোনো উত্তর পাওয়া গেল না। সিদ্দা রাতের অন্ধকারে উধাও হয়ে গেছে।

Mr. Sivasanker came home an hour later, grew very excited over all this, went to the police station and lodged a complaint.

শ্রী শিবশঙ্কর বাড়ি ফিরলেন ঘন্টাখানেক বাদে, খুব উত্তেজিত হয়ে পড়লেন ব্যাপারটি নিয়ে, থানায় গেলেন এবং একটি অভিযোগ দায়ের করে এলেন।

After her meal Leela refused to go to bed. “I won’t sleep unless Sidda comes and tells me stories. I don’t like you, Mother. You are always abusing and worrying Sidda. Why are you so rough?”

খাওয়ার পর লীলা কিছুতেই বিছানায় যেতে রাজি নয়। “যতক্ষণ না সিদ্দা এসে আমাকে গল্প বলছে আমি ঘুমাব না। আমি তোমাকে পছন্দ করি না মা। তুমি সবসময় সিদ্দার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার কর আর অতিষ্ঠ করে তোল। কেন তুমি এত কর্কশ?”

“But he has taken away your chain …. “

“কিন্তু সে তোমার চেন নিয়ে পালিয়ে গেছে…”

“Let him. It doesn’t matter. Tell me a story.”

“যেতে দাও, ওতে কিছু আসে যায় না। আমাকে একটা গল্প বল।”

“Sleep, sleep,” said Mother, attempting to make her lie down on her lap.

“ঘুমাও, ঘুমাও,” লীলার মা বললেন, লীলাকে তাঁর কোলে শুইয়ে ঘুম পাড়াতে চেষ্টা করলেন মা।

“Tell me a story, Mother,” Leela said. It was utterly impossible for her mother to think of a story now. Her mind was disturbed. The thought of Sidda made her panicky. The fellow, with his knowledge of the household, might come in at night and loot. She shuddered to think what a villain she had been harbouring all these days. It was God’s mercy that he hadn’t killed the child for the chain. “Sleep, Leela, sleep,” she cajoled. “Can’t you tell the story of the elephant?” Leela asked.

“আমাকে একটা গল্প বলো মা,” লীলা বলল। লীলার মায়ের পক্ষে ওই অবস্থায় গল্প বলা কার্যত অসম্ভব। তাঁর মন অশান্ত। সিদ্দার চিন্তা তাঁকে আতঙ্কিত করে রেখছে। বদমাশটা হয়ত বাড়ির সব খবর পেয়ে গিয়ে রাতের বেলা ডাকাতি করতে আসবে। তিনি ভয়ে কেঁপে উঠলেন এই ভেবে যে কেমন সাংঘাতিক এক বদমায়েশকে তিনি এতদিন আশ্রয় দিয়ে এসেছেন। ঈশ্বররের অপার দয়া যে হারের লোভে লোকটা তাঁর সন্তানকে হত্যা করেনি। “ঘুমাও লীলা, ঘুমাও,” তিনি লীলাকে আদর করে ভোলাতে চাইলেন। “তুমি কি হাতির গল্পটা বলতে পার না?” লীলা প্রশ্ন করল।

“No.”

“না।”

Leela made a noise of deprecation and asked, “Why should not Sidda sit in our chair, Mother?” Mother didn’t answer the question. Leela said a moment later, “Sidda is gone because he wouldn’t be allowed to sleep inside the house just as we do. Why should he always be made to sleep outside the house, Mother? I think he is angry with us, Mother.” By the time Sivasanker returned, Leela had fallen asleep. He said, “What a risk we took in engaging that fellow. It seems he is an old criminal.

চিৎকার চেঁচামেচি মাধ্যমে অসন্তোষ প্রকাশ করে লীলা জানতে চাইল,” মা, সিদ্ধা কেন আমাদের চেয়ারে বসতে পারে না?” মা এ প্রশ্নের উত্তর দিলেন না। এক মুহুর্ত পরেই লীলা বলে উঠল “সিদ্ধা চলে গেছে কারণ তাকে আমাদের মত ঘরের ভিতরে শুতে দেওয়া হতো না। কেন তাকে সবসময় ঘরের বাইরে শুতে হবে মা? আমার মনে হয় সিদ্দা আমাদের ওপর রাগ করেছে।” শ্রী শিবশঙ্কর যখন ফিরলেন তখন লীলা ঘুমিয়ে পড়েছে। শ্রী শিবশঙ্কর বললেন “কি ঝুকিই না আমরা নিয়েছিলাম ওই লোকটিকে কাজে লাগিয়ে। মনে হছে, সে একজন পুরানো পাপী।

He has been in jail half a dozen times for stealing jewellery from children. From the description I gave, the inspector was able to identify him in a moment.”

শিশুদের গয়নাগাটি চুরির অপরাধে সে বার ছয়েক জেল খেটেছে। আমি ইন্সপেক্টরকে তার যে বর্ণনা দিয়েছিলাম তার থেকে ইন্সপেক্টর একমুহূর্ত তাকে সনাক্ত করতে পারলেন।


Leela’s Friend Bengali Meaning Page 5


“Where is he now?” asked the wife.

“এখন সে কোথায়?” স্ত্রী জানতে চাইলেন।

“The police know his haunts. They will pick him up very soon, don’t worry. The inspector was furious that I didn’t consult him before employing him ….”

“পুলিশ তার ডেরার সন্ধান জানে। তারা খুব তাড়াতাড়ি তাকে তুলে নেবে, চিন্তা করো না। তাকে নিয়োগ করার আগে তাঁর সঙ্গে পরামর্শ করিনি বলে ইন্সপেক্টর তো রেগে আগুন ….”

Four days later, just as Father was coming home from the office, a police inspector and a constable brought in Sidda. Sidda stood with bowed head. Leela was overjoyed. “Sidda! Sidda!” she cried, and ran down the steps to meet him.

চারদিন বাদে, ঠিক যখন লীলার বাবা অফিস থেকে বাড়ি ফিরছিলেন তখন একজন পুলিশ ইন্সপেক্টর এবং একজন হাবিলদার সিদ্দাকে এনে হাজির করল। সিদ্দা মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে। লীলা খুশিতে ডগমগ হয়ে উঠল। “সিদ্দা!সিদ্দা!” বলে চিত্কার করতে করতে সে সিড়ি ভেঙ্গে ছুটে গেল তার সঙ্গে দেখা করতে।

“Don’t go near him,” the inspector said, stopping her.

“ওর কাছে যেও না,” ইন্সপেক্টর লীলাকে থামিয়ে বললেন।

“Why not?”

“যাব না কেন?”

“He is a thief. He has taken away your gold chain.”

“ও একটা চর, ও তোমার সোনার হার চুরি করে নিয়ে পালিয়েছিল।”

“Let him. I will have a new chain,” Leela said, and all of them laughed. And then Mr Sivasanker spoke to Sidda; and then his wife addressed him with a few words on his treachery. They then asked him where he had put the chain.

“করুক গে। আমার নতুন একটা হার হবে।” লীলা এ কথা বলতেই অন্য সকলে হেসে উঠল। এরপর শ্রী শিবশঙ্কর সিদ্দার সাথে কথা বললেন এবং তার স্ত্রী সিদ্দার উদ্দেশ্যে তার বিশ্বাসঘাতকতা নিয়ে বেশ কিছু কথা শোনালেন। তারপর তাঁরা সিদ্দাকে প্রশ্ন করলেন কোথায় সে সোনার হারটাকে রেখেছে।

“I have not taken it,” Sidda said feebly, looking at the ground.

“আমি ওটা নিয়নি,” মাটির দিকে তাকিয়ে সিদ্দা দুর্বলভাবে জবাব দিল।

 “Why did you run away without telling us?” asked Leela’s mother. There was no answer.

” তুমি আমাদের না জানিয়ে পালালে কেন?” লীলার মা প্রশ্ন করলেন। কোনো উত্তর পাওয়া গেল না।

Leela’s face became red. “Oh, policemen, leave him alone. I want to play with him.”

লীলার মুখ লাল হিয়ে উঠল। “এই পুলিশ ওকে ছেড়ে দাও। আমি অর সঙ্গে খেলতে চায়।”

“My dear child,” said the police inspector, “he is a thief.”

“ছোট্ট সোনা আমার” পুলিশ ইন্সপেক্টর বললেন, “ও একটা চোর।”

“Let him be,” Leela replied haughtily.

“হোগ গে চোর,” লীলা কিছুটা উধ্ত্ভাবে উত্তর দিল।

“What a devil you must be to steal a thing from such an innocent child!” remarked the inspector. “Even now it is not too late. Return it. I will let you go provided you promise not to do such a thing again.” Leela’s father and mother, too, joined in this appeal. Leela felt disgusted with the whole business and said, “Leave him alone, he hasn’t taken the chain.” “You are not at all a reliable prosecution witness, my child,” observed the inspector humorously.

“তুমি কত বড় একটা শয়তান যে এমন নিষ্পাপ এক শিশুর থী জিনিস চুরি করেছ?”, ইন্সপেক্টর মন্তব্য করলেন। “এখনও খুব দেরী হয়নি। ওটা ফেরত দাও। আমি তোমাকে ছেড়ে দেব যদি তুমি প্রতিজ্ঞা কর যে ভবিষতে তুমি এই ধরনের কাজ আর করবে না। “লীলার বাবা-মাও এই আবদনে যোগ দিলেন। লীলা গত ব্যাপারটা বিরক্ত হল এবং বলল “ওকে ছেড়ে দাও, ও হারটা নেয়নি।” ইন্সপেক্টর রকিসতা করে মন্তব্য করলেন, “বাছা, তুমি মোটেও নির্ভরযোগ্য বাদী পক্ষের সাক্ষী নও।’

“No, he hasn’t taken it!” Leela screamed. 

লীলা তীক্ষ্ণস্বরে চত্কার করে উঠল, “না, ও ওটা মোটেই নেয়নি”।

Her father said, “Baby, if you don’t behave, I will be very angry with you.”

তার বাবা বললেন, “দেখ খুকি, যদি তুমি সভ্যভব্য আচরন না কর, তোমার ওপর আমি ভয়ানক রাগ করব।”

Half an hour later, the inspector said to the constable, “Take him to the station. I think I shall have to sit with him tonight.” The constable took Sidda by the hand and turned to go.

আধ ঘন্টা বাদে ইন্সপেক্টর হাবিলদারকে বললেন, “ওকে থানায় নিয়ে যাও। মনে হচ্ছে আজ রাতে অর সাথে আমাকে বসতে হবে।” হাবিলদার সিদ্দার হাত ধরে তাকে নিয়ে যাবার জন্য ঘুরল।


Leela’s Friend Bengali Meaning Page 6


Leela ran behind them crying, “Don’t take him. Leave him here, leave him here.” She clung to Sidda’s hand. He looked at her mutely, like an animal. Mr Sivasanker carried Leela back into the house. Leela was in tears.

লীলা তাদের পিছনে ছুটতে ছুটেত অনুনয় করল, “ওকে নিয়ে যেও না। ওকে এখানে রেখে দাও, এখানে রেখে যাও।” সে সিদ্দার হাত আঁকড়ে ধরল। সিদ্দা পশুর মতো বোবা দৃষ্টিতে তার দিকে চেয়ে রইল।শ্রী শিবশঙ্কর লীলাকে বাড়িতে রেখে দিলেন। লীলার চোখে তখন জল।

Every day when Mr Sivasanker came home he was asked by his wife,”Any news of the jewel?” and by his daughter, “Where is Sidda?”

প্রত্যেকদিন শ্রী শিবশঙ্কর যখন বাড়ি ফিরতেন তাঁর স্ত্রী তাঁকে প্রশ্ন করতেন, “গয়নাটার কোনো খোঁজ পাওয়া গেল?” আর তাঁর মেয়ে প্রশ্ন করত সিদ্দা কোথায়?”

“They still have him in the lockup, though he is very stubborn and won’t say anything about the jewel,” said Mr Sivasanker.

“তাঁরা তাকে এখনও লকআপে আটকে রেখেছে, যদিও সে খুবই একগুয়ে এবং গয়নাটা সম্বন্ধে টু শব্দটি করবে না।” শ্রী শিবশঙ্কর বললেন ।

“Bah! What a rough fellow he must be!” said his wife with a shiver.

“বাবা! লোকটা বদমাশ বটে।” তাঁর স্ত্রী কেঁপে উঠে বললেন।

“Oh, these fellows who have been in jail once or twice lose all fear. Nothing can make them confess.”

“ওফ ! এই লোকগুলো যারা এক দু-বার জেল খেটেছে, তারা সব ভয় কাটিয়ে ওঠে। কোনো কিছু করে তাদের স্বীকার করানো যাবে না।”

A few days later, putting her hand into the tamarind pot in the kitchen, Leela’s mother picked up the chain. She took it to the tap and washed off the coating of tamarind on it. It was unmistakably Leela’s chain. When it was shown to her, Leela said, “Give it here. I want to wear the chain.”

কয়েকদিন বাদে, রান্নাঘরে তেঁতুলের পাত্রে হাত ঢুকিয়ে লীলার মা হারটা তুলে আনলেন। তিনি সেটা কলের তলায় এনে ভালো করে তেঁতুলের আস্তরনটি পরিষ্কার করে ফেললেন। নিঃসন্দেহে এটি ছিল লীলার হার। যখন সেটি লীলাকে দেখানো হল, লীলা বলল, “আমাকে দাও! আমি হারটা পড়তে চায়।”

“How did it get into the tamarind pot?” Mother asked.

“এটা তেঁতুলের পাত্রে গেল কিভাবে?” মা প্রশ্ন করলেন।

“Somehow,” replied Leela.

“গেছে কোনভাবে,” লীলা উত্তর দিল।

“Did you put it in?” asked Mother.

“তুমি কি এটা ভিতরে রেখেছিলে?” মা জিজ্ঞাসা করলেন।

“Yes.”

“হ্যা।”

“When?”

“কখন?”

“Long ago, the other day.”

“অনেক দিন আগে, আর-এক দিন।”

“Why didn’t you say so before?”

“এটা তুমি আগে বলনি কেন?”

“I don’t know,” said Leela.

“আমি জানি না,” লীলা বলল।

When Father came home and was told, he said, “The child must not have any chain hereafter. Didn’t I tell you that I saw her carrying it in her hand once or twice? She must have dropped it into the pot sometime … And all this bother on account of her.” “What about Sidda?” asked Mother.

যখন বাবা বাড়ি এলেন এবং তাঁকে সব কিছু জানানো হল, তিনি বললেন “এরপর থেকে বাচ্চাকে আর হার পরতে দেওয়া যাবে না। আমি তোমাকে বলিনি যে আমি লীলাকে দু-একবার হারটা হাতে নিয়ে ঘুরতে দেখছিলাম? সে নিশ্চয় কোনো সময়ে হার্তিকে পাত্রের মধ্যে ফেলে দিয়েছিল… তার জন্যই এতসব ঝামেলা।”

“I will tell the inspector tomorrow …in any case, we couldn’t have kept a criminal like him in the house.”

“আমি ইন্সপেক্টরকে আগামী কাল জানিয়ে দেব ….. যাই হোক, আমরা কোনো মতোই সিদ্দার মত একজন অপরাধীকে বাড়িতে থাকতে দিতে পারতাম না।”

Leave a Comment

TS SSC Class 10 Result 2022 : Check Out Now HPBOSE Class 10 Result 2022 : Check Out Now TS Inter Result 2022 : Check Out Now ৩৭% মানুষ বিটকয়েনকে একটি আইনি মুদ্রা বানাতে চায় Ather 450 Plus ইলেকট্রিক স্কুটারের সামনে Ola ব্যর্থ
%d bloggers like this: